সাদুল্লাপুরে চালককে বেঁধে অটোরিকশা ছিনতাইয়ের চেষ্টা, আটক ৩

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল, গাইবান্ধা : গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে চালকের হাত-পা ও মুখ বেঁধে ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা ছিনিয়ে নিয়ে পালানোর সময় তিন যুবককে আটক করে পুলিশে দিয়েছেন স্থানীয়রা। আহত অবস্থায় চালক মুকুল মিয়াকে (৩৬) উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।শুক্রবার (২ এপ্রিল) দিনগত রাত সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের নুরুলের টেকানির ইট ভাটা সংলগ্ন এলাকায় চালক মুকুল মিয়ার হাত-পা ও মুখ বেঁধে অটোরিকশা নিয়ে পালান চার যুবক।

পরে একই ইউনিয়নের নাকড়ি বাঁশের তল এলাকায় ধাওয়া করে তিন যুবককে আটক করেন স্থানীয়রা।

চালক মুকুল মিয়া পার্শ্ববর্তী পীরগঞ্জ উপজেলার ধানসালা গ্রামের সৈয়দ আলীর ছেলে। তাকে সাদুল্লাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আটক ব্যক্তিরা হলেন-সাদুল্লাপুর উপজেলার ভাতগ্রাম ইউনিয়নের খোদাবক্স গ্রামের দুদু আকন্দের ছেলে শাহাদুল ইসলাম (২২), দক্ষিণ ফরিদপুর গ্রামের এখলাসের ছেলে এনামুল হক (১৮) ও তাজু আকন্দের ছেলে মোস্তাকিম (১৯)। এছাড়া পলাতক রবিউল ইসলাম (২২) খোদাবক্স গ্রামের গুরা আকন্দের ছেলে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে সাদুল্লাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাসুদ রানা জানান, সন্ধ্যার দিকে পীরগঞ্জ থেকে চার যুবক মুকুলের অটোরিকশা ভাড়া নিয়ে ফরিদপুরের মলংবাজারে আসেন। এরপর নুরুলের টেকানির ইটভাটার কাছে অটোরিকশাটি পৌঁছালে চালককে মারধর করে অটোরিকশার চাবি নেন তারা। পরে মুকুলের হাত-পা বেঁধে হাতে ও ঘাড়ে ছুরিকাঘাত করে রাস্তার পাশে ফেলে অটোরিকশা নিয়ে পালান ছিনতাইকারীরা। এসময় মুকুলের চিৎকারে স্থানীয়রা ধাওয়া করে নাকড়ি বাঁশের তল এলাকা থেকে অটোরিকশাসহ তিনজনকে আটক করে পিটুনি দেন। এসময় তাদের সঙ্গে থাকা রবিউল ইসলাম নামে একজন পালিয়ে যান। স্থানীয়দের কাছে খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে তিন ছিনতাকারীকে আটক ও চালককে উদ্ধার করা হয়। অটরারিকশাটিও উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও জানান, অটোরিকশা চালক মুকুল মিয়া ও আটক তিনজনকে সাদুল্লাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্নে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। মুকুলের স্বজনরা মামলার করছেন।